মতলুব সাহেব তনিমার প্রশংসা করে বললেন: আমার নাতনীকে দিয়ে হবে। লেখার যা হাত….।

সাজিদ বলল: কী হবে দাদা? সান্টু বেহালা বাজাতে ফান্স গেছে, আর ও না হয় স্বামীর সাথে ফ্রান্স, ইংল্যান্ড বা অস্ট্রেলিয়ায় সেটল হবে, এই তো? আমি এই দেশেই থাকব। দেশের জন্য কিছু করব।

তনিমা রাগ করতে যাচ্ছিল। তার আগেই মাহবুব রহমান বললেন: তিনটা থেকে সাক্ষাতকার দিলি কোন হিসাবে? দুপুরে খাওয়ার পর একটু বিশ্রাম নেব, তা আর হবে না।

মাহাবুব রহমানের অনুরোধের প্রেক্ষিতে তিনটার জায়গায় চারটা করা হল।

সাজিদ বলল: ইন্টারভিউ নেবার জন্য দাদা আর বাবা থাকলেই হবে। অফিস সহকারি হিসাবে থাকবে তনিমা। আমাকে যেন ডাকা না হয়।

মতলুব সাহেব বললেন: তুই থাকলে সমস্যা কী?

: নিজে একটা চাকরির জন্য দ্বারে দ্বারে ইন্টারভিউ দিয়ে বেড়াচ্ছি, আমি আবার অন্যের ইন্টারভিউ কী নেব?

: তুই ইন্টারভিউ দিয়ে বেড়াচ্ছিস বলেই ইন্টারভিউ নিতে পারবি। অভিজ্ঞতা কাজে লাগানোর সুযোগ আছে। যে মার খায় সে মার দিতেও জানে। পুরনো রোগি নতুন ডাক্তারের চেয়ে অভিজ্ঞ।

তেরো জনের বসার সুব্যবস্থা করা হলো ড্রইং রুমে। দশজন সাক্ষাতকার প্রার্থী, আর তিনজন সাক্ষাতকার গ্রহীতা।

সাড়ে তিনটা মধ্যেই একটি মেয়ে চলে এল। মেয়েটার নাম ঝুমুর। ঘুঙরের মত ঝুমুর ঝুমুর শব্দে সে কথা বলে। কথার সাথে হাসিটা হল ঝুমুরের মাঝে গীটারের রিনরিন শব্দ।

সাক্ষাতকার প্রার্থী এসে চুপচাপ বসে থাকবে, যখন সাক্ষাতকারের জন্য ডাকা হবে তখন সাক্ষাতকার দিবে-এরকমই তো নিয়ম। কিন্তু ঝুমুর সাক্ষাতকার দেবে কি, এসেই উল্টো সাক্ষাতকার নিতে শুরু করে দিল।

ঝুমুর বলল: আর কেউ আসেনি?

মাহাবুব রহমান আর সাজিদ পরস্পরের মুখ চাওয়া-চাওয়ি করল। সাজিদ কিছু বলল না। মাহাবুব রহমান বললেন: আসতে বলা হয়েছে চারটায়, তাই……।

: আমি একটু আগেই এলাম। পাঁচটায় আমার আরেকট ইন্টারভিউ আছে। বাচ্চাদের নাচ-গানের স্কুলে। ওরা এমন একজন চাচ্ছেন, যারা নাচ ও গান উভয়ই শেখাতে পারবে।

তার মানে ঝুমুর মেয়েটা নাচ-গান উভয়ই ভালো জানে। ভালো না জানলে টিচার হিসাবে ইন্টারভিউ দিতে চাওয়ার কথা না। মাহাবুব রহমান বললেন: আপনি নাচ-গান দু’টোই জানেন?

: জি, বুলবুল লোলিতকলা একাডেমিতে ছয় বছর নাচ শিখেছি ঝুমু খানের কাছে। ঝুমু খানকে চিনেছেন তো? লোক সংগীত শিল্পী নীনা হামিদের বড় বোন। নীনা হামিদের চেয়েও মোটা।

: আর গান কোথায় শিখেছেন?

: গান শিখেছি ছায়ানটে। আট বছর বয়স থেকে আমি ছায়ানটে গান শিখতে শুরু করি।

: তাহলে আপনি নিশ্চয় সুন্দর গান করেন?

: জি, একটা গান শোনাচ্ছি আপনাদের।

এবার সাক্ষাতকার গ্রহীতা তিনজনই একযোগে অবাক হল। গান শোনার প্রস্তাব না করতেই শিল্পী গান শোনাতে চাচ্ছে। এরকেম উদাহরণ বিরল। গান শোনানোর কথা শুনে তনিমাও এসে বসল সোফার এক কোণায়। ঝুমুর গাইল-চোখের আলো দেখেছিলেম চোখের বাহিরে।

সত্যিই ঝুমুর সুন্দর গেয়েছে। কনিকা বন্দ্যেপাধ্যায়ের কন্ঠের সাথে মিল আছে।

মতলুব সাহেব বললেন: আপনি তো রেডিও, টিভিতে……।

: আমি বাংলাদেশ বেতার আর বাংলাদেশ টেলিভিশনের তালিকাভূক্ত শিল্পী। সেখানে মাসে একটা/দুইটা প্রগ্রাম পাই। তাতে যা সম্মানি পাই তা খুবই কম। একটা চাকরির দরকার।

: মঞ্চে প্রগ্রাম……।

: বর্তমানে স্কুল-কলেজে, ক্লাবে বা পাড়ায় যেসব অনুষ্ঠান হয় তাতে ব্যান্ড দল ভাড়া করে নেয়। আর শিল্পী নিলে বুমবুম, ওলে ওলে ধরনের শিল্পী নেয়। রবীন্দ্র সংগীত শিল্পীদের স্টেজ প্রগাম করার সুযোগ কম। বুমবুম প্রজন্ম রবীন্দ্র সংগীত বোঝে না, বোঝে বুকটা ফাইটা যায়….।